পাসপোর্ট করতে চাইলে যা করতে হবে?

দেশে বা বিদেশে আপনার একটি আন্তর্জাতিক পরিচয়পত্রের নাম পাসপোর্ট। বিদেশ যেতে চাইলে পাসপোর্টের বিকল্প নেই। এছাড়া নানা কাজে পাসপোর্টের প্রয়োজন হয় । সময় পেলে এখনই করে রাখতে পারেন পাসপোর্ট । পাসপোর্ট করার জন্য প্রথমেই দরকার সদ্য তোলা ছবি । ছবি অবশ্যই কোনো ‘ফটো ল্যাব’ থেকে প্রিন্ট করে নিতে হবে । তবে এই ছবি আপনার পাসপোর্টে যুক্ত হবে না ।

নলাইনেও ফরম পূরণ

এই ঠিকানা (https://bit.ly/2PWScxw) থেকে পাসপোর্ট ফরম ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে পূরণ করুন । চাইলে এই ওয়েবসাইটে (www.passport.gov.bd) গিয়ে অনলাইনেও ফরম পূরণ করতে পারবেন ।

দ্য তোলা ছবি

নমুনা ফরম দেখে সঠিকভাবে ফরম পূরণ করুন (ফরম এ দেয়া আপনার নাম, বাবা ও মায়ের নাম এবং জন্ম তারিখ এসএসসি সনদ এর সাথে মিলিয়ে নিবেন) এবং একটি ‘ব্যাক টু ব্যাক’ ফটোকপি করে নিন। দুই সেট ফরমের উপর সদ্য তোলা ছবি আঠা দিয়ে যুক্ত করুন ।

এরপর টাকা জমার মূল রশিদ মূল ফরমের উপরে ডান দিকে আঠা দিয়ে যুক্ত করুন । ফটোকপি রশিদটি ফটোকপি ফরমের উপর একইভাবে যুক্ত করুন ।

জাতীয় পরিচয়পত্র

এরপর ফরমে উল্লেখিত ব্যক্তিদের মাধ্যমে ছবি সত্যায়িত ও ফরমের নির্ধারিত অংশটুকু (তৃতীয় পৃষ্ঠা) পূরণ করুন। দুই সেট ফরমের সাথে এসএসসির সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন সনদ সংযুক্ত করুন ।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিক টেকনিক্যাল সনদসমূহের (যেমন- ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ড্রাইভার ইত্যাদি) সত্যায়িত ফটোকপি যুক্ত করুন। চাকরিজীবীদের ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক প্রত্যয়নপত্র (এনওসি), পরিচয়পত্র, ভিজিটিং কার্ড যুক্ত করতে হবে ।

রম জমা

আপনার নিকটস্থ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে ‘ফ্রন্ট ডেস্কে’ দুই সেট ফরম জমা দিন । তারা আপনার পূরণকৃত ফরম ও কাগজপত্র দেখে পরবর্তী কাজের নির্দেশনা দেবেন । সরকারি ছুটির দিন (শুক্র ও শনিবার) বাদে সপ্তাহের বাকি পাঁচদিন সব পাসপোর্ট অফিস খোলা থাকে ।

এই নির্দেশনার মধ্যে থাকবে ফরমের তথ্য অনলাইনে লিপিবদ্ধকরণ, ছবি উঠানো, ডিজিটাল স্বাক্ষর প্রদান ও আঙুলের ছাপ গ্রহণ ।

পাসপোর্ট প্রদান

সব কাজ শেষ হলে আপনার পাসপোর্ট প্রদানের একটি সম্ভাব্য তারিখসহ স্লিপ দেয়া হবে । এটি ভালোভাবে সংরক্ষণ করুন । কারণ পাসপোর্ট গ্রহণের সময় এই স্লিপ জমা দিতে হবে ।